English সোমবার, জানুয়ারী ২০, ২০২০

‘আমাদের উপর হামলা করতে শত্রুপক্ষকে আমরা প্ল্যাটফর্ম তৈরি করে দিয়েছি’: সিএএ প্রসঙ্গে শিব শঙ্কর মেনন

ভারতের সাবেক ন্যাশনাল সিকিউরিটি অ্যাডভাইজর (এনএসএ) শিব শঙ্কর মেনন শুক্রবার সিটিজেনশিপ অ্যামেন্টমেন্ট অ্যাক্ট এবং জম্মু ও কাশ্মীরের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের বিরুদ্ধে কড়া বক্তব্য দিয়েছেন। রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে মেনন বলেন যে, ভারতের সাম্প্রতিক পদক্ষেপের ফলে যেটা অর্জিত হয়েছে, সেটা হলো আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ঐতিহ্যগত মিত্রদের কাছ থেকে ভারত বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে এবং যেটা ‘কোন ভাল ফল বয়ে আনবে না’।

সাবেক এই কূটনীতিক ও পররাষ্ট্র সচিব – যিনি সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের আমলে এনএসএ’র দায়িত্ব পালন করেছেন – তিনি বলেছেন, “এই ধারাবাহিক পদক্ষেপগুলোর জন্য কোন উল্লেখযোগ্য আন্তর্জাতিক সহায়তা পাওয়া যায়নি। প্রবাসী কিছু সদস্য আর ইউরো এমপিদের কিছু কট্টর ডানপন্থী ব্যক্তি ছাড়া কারো সমর্থন মেলেনি”।

তিনি বলেন, “দেশের বাইরে থেকে যারা সমালোচনা করছেন, তাদের তালিকা সত্যিকার অর্থেই দীর্ঘ। প্রেসিডেন্ট মখা ও চ্যান্সেলর মার্কেল থেকে নিয়ে ইউএন হাইকমিশনার ফর রিফিউজিস এবং নরওয়ের রাজার মতো ব্যক্তিরাও এর সমালোচনা করেছেন, যারা সাধারণত এ ধরনের বিষয়ে ভদ্র অবস্থানে থাকেন”।

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্করের সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্র ফরেন অ্যাফেয়ার্স কমিটির বৈঠক বাদ দেয়া প্রসঙ্গে মেনন বলেন, “মনে হচ্ছে আমরা এটা জানি যে আমরা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছি। বৈঠকে অংশ নিয়ে বক্তব্য খণ্ডানোর চেয়ে আমরা বৈঠক এড়িয়ে চলতে শুরু করেছি”।

ভারতীয় আমেরিকান কংগ্রেস সদস্য প্রমিলা জয়পাল – যিনি ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল নিয়ে ভারত সরকারের সমালোচনা করেছেন – তার ওই বৈঠকে উপস্থিত থাকার কথা ছিল বলে ওই বৈঠক বাতিল করেন জয়শঙ্কর। মেনন আরও বলেন যে, ‘ভারতের সমালোচনা করে জয়পাল যে প্রস্তাবনা দিয়েছেন, সেখানে ২৯ জন কো-স্পন্সর রয়েছেন, যাদের মধ্যে রিপাবলিকানরাও রয়েছেন এবং ‘সেই ভারতীয় এমপিও রয়েছেন, যিনি হাউডি মোদি সম্মেলনে অংশ নিয়েছিলেন।

সাবেক এই এনএসএ বলেন, “যুক্তরাষ্ট্রে ভারতের ব্যাপারে বিগত ২৫ বছর ধরে যে সম্মিলিত সমর্থন ছিল, সেটা আমরা ভেঙ্গে ফেলেছি। এনডিএ বা ইউপিএ যুক্তরাষ্ট্র-ভারত সম্পর্কের উন্নয়নের জন্য কোন বিষয় নয়। সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রেসিডেন্ট প্রার্থীই এই ইস্যুগুলো নিয়ে কথা বলেছেন”।

তিনি বলেন, “সাম্প্রতিক অতীতে আমরা যেটা অর্জন করেছি, সেটা হলো পাকিস্তানের পাশাপাশি ধর্মীয় আদর্শে পরিচালিত ও অসহিষ্ণু রাষ্ট্র হিসেবে আমাদের ইমেজকে তুলনা করা হচ্ছে। আমরা আমাদের প্রতিপক্ষকে প্ল্যাটফর্ম উপহার দিয়েছি, যেখান থেকে তারা আমাদের উপর হামলা করছে”।